পাঙ্গাস মাছ খাওয়ার উপকারিতা ও ক্ষতিকর দিক

পাঙ্গাস মাছ খাওয়ার উপকারিতা অনেক তবে এর কিছু ক্ষতিকর দিকও থাকতে পারে। একটি বিশেষ পুষ্টিগুণে পাঙ্গাস মাছ অন্য মাছের চেয়ে এগিয়ে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি গবেষকেরা দেখেছেন, পাঙাশ মাছে অত্যাবশ্যকীয় অ্যামাইনো অ্যাসিড অনেক বেশি। এ কারণে পাঙাশে থাকা আমিষের মান বেশ উন্নত।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের গবেষকেরা বলছেন, শস্যদানা, ফল বা সবজির চেয়ে উচ্চমানের আমিষ বেশি আছে মাছে। তাঁরা বলছেন, পাঙাশের মতো রুই ও তেলাপিয়াতেও উচ্চমানের আমিষ পাওয়া যায়।

পাঙ্গাস মাছ খাওয়ার উপকারিতা

  1. পাঙ্গাস মাছের মাংস, কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেমের সাথে যুক্ত রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে।
  2. পাঙ্গাস মাছ কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।
  3. পাঙ্গাস মাছ করোনারি হৃদরোগ প্রতিরোধ করে।
  4. পাঙ্গাস মাছ মায়ের গর্ভে শিশুর বৃদ্ধি অপ্টিমাইজ করে।
  5. পাঙ্গাস মাছ পেশী গঠনে সাহায্য করে।
  6. পাঙ্গাস মাছ হাড়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখে।

পাঙ্গাস মাছ খাওয়ার ক্ষতিকর দিক

পাঙ্গাস মাছ খাওয়ার ক্ষতিকর দিকও থাকতে পারে। কেননা মাছের খাদ্যে এন্টিবায়োটিক সহ নানান ক্ষতিকর উপাদান ব্যবহার করা হলে সেটি মানব শরীরের জন্য ক্ষতিকর। আমাদের দেশে যে মাছ উৎপাদন করা হয় তার বেশির ভাগই মানব শরীরের জন্য ক্ষতিকর নয়। বরং উচ্চ পুষ্টি সমৃদ্ধ হয়।


Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *